খবর

আইসিটি উদ্যোক্তাদের খুঁজে খুঁজে সহযোগিতা দিতে হবে: সালমান এফ রহমান

15 October, 2019
Source: bdnew24.com

আইসিটি খাতে বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সারদের বিদেশি মুদ্রা আয়ের পরিমাণ যখন ক্রমশ বাড়ছে, তখন খাত ধরে তাদের খুঁজে এনে উদ্দীপনা দিতে বিডা ও আইসিটি বিভাগকে অনুরোধ জানিয়েছেন সালমান এফ রহমান।

মঙ্গলবার ‘ইন্ডাস্ট্রি লিডার সামিট’ শিরোনামে এক গোলটেবিল বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টার এই আহ্বান আসে।

ঢাকার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে শুরু হওয়া ডিজিটাল ডিভাইস অ্যান্ড ইনোভেশন এক্সপোর দ্বিতীয় দিনে এই গোলটেবিল বৈঠক হয়।

অনুষ্ঠানে বিডা চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ও আইসিটি সচিব এন এম জিয়াউল আলমকে উদ্দেশ করে সালমান এফ রহমান বলেন, “২০৪১ সালের মধ্যে আমরা যখন উন্নত দেশ হওয়ার কথা বলছি, তখন চতুর্থ শিল্প বিপ্লব মোকাবেলা করাই আমাদের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ। আমাদের ফ্রিল্যান্সাররা বছরে বিলিয়ন ডলার নিয়ে আসছে দেশে, যার সঠিক পরিসংখ্যানও করতে পারিনি আমরা।

“এখন বিডা ও আইসিটি বিভাগকে বলব, এই ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের সেক্টর ধরে ধরে খুঁজে আনতে হবে। নতুন-পুরনো সব উদ্যোক্তাকে খুঁজে বের করতে হবে। পাশাপাশি বেসরকারি খাত থেকেও প্রকৃত বিনিয়োগকারীদের এগিয়ে আসতে হবে। এই আইসিটি খাতেই আমাদের ফোকাস করতে হবে।”

বস্ত্র খাতের শীর্ষ ব্যবসায়ী সালমান এফ রহমান গোলটেবিল বৈঠকে আর্টিফিশিয়াল ইনটেলিজেন্স ও রোবোটিকস নিয়েও কথা বলেন।

“আজকে গার্মেন্টসগুলো থেকে বলা হচ্ছে, রোবট এসে যাওয়ায় তাদের অনেককে ছাঁটাই করা হচ্ছে। এতে কর্মসংস্থান কমে যাওয়ার আশঙ্কাও করছেন কেউ কেউ। কিন্তু এই আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ও রোবোটিকস ব্যবস্থাপনাতেই তো আমরা আরও অনেক লোক নিয়োগ দিতে পারি। আরও অনেক কর্মসংস্থানে সুযোগ করতে পারে রোবোটিকস।এটা আমাদের লক্ষ্য হওয়া উচিৎ।”

তরুণ উদ্যোক্তাদের সহযোগিতা করার আশ্বাস দিয়ে বিডা চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম বলেন, “এখন তাদের প্রণোদনা দিতে আইসিটি পলিসি তৈরি করতে হবে।”

পাশাপাশি বেসরকারি খাতকে এগিয়ে আসার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, “এখন উদ্ভাবনের সংস্কৃতি শুরু হয়েছে। সরকারের নানা উদ্যোগের পাশাপাশি এখন বেসরকারি খাতকেও এগিয়ে আসতে হবে।”

“বিডা থেকে উদ্ভাবনী প্রকল্পগুলোকে প্রণোদোনা ও প্রচারে সহযোগিতা করতে পারি আমরা। নবীন উদ্যোক্তাদের খুঁজে এনে তাদের জন্য ব্যবসার প্রশিক্ষণ দিতে পারি। পরে নিজেদের জেলায় গিয়ে তারাও অনেককে প্রশিক্ষণ দিতে পারবে।”

অন্যদের মধ্যে এটুআইয়ের পলিসি অ্যাডভাইজার পরিচালক আনীর চৌধুরী, এটুআই ইনোভেশন ল্যাবের হেড অব টেকনোলজি ফারুক আহমেদ জুয়েল এই গোলটেবিল বৈঠকে অংশ নেন।