খবর

পরিবেশের কথা মাথায় রেখেই সুন্দরবন এলাকায় সব হচ্ছে - বিনিয়োগ উন্নয়ন অনুষ্ঠানে সালমান এফ রহমান

15 October, 2019
Source: The Daily Inqilab

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেছেন, সুন্দরবন এলাকায় যা কিছু করা হচ্ছে জলবায়ু ও পরিবেশের কথা মাথায় রেখেই সব করা হচ্ছে। সালমান এফ রহমান বলেন, আপনাদের আশ্বস্ত করতে চাই প্রধানমন্ত্রী জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশের বিষয়ে খুবই সিরিয়াস। সুন্দরবনের ক্ষতি করে কিছু করা হবে না। আপনারা নিশ্চিত থাকতে পারেন। তিনি বলেন, বিশ্বে ইকোনমিক জোনের অনেক মডেল রয়েছে। আমাদের এখানে করা হয়েছে কান্ট্রি স্পেসিফিক ইকোনমিক জোন। অভিনব আইডিয়া। চীনা ইকোনমিক জোন, জাপানিজ ইকোনমিক জোন, ভারতীয় ইকোনমিক জোন দেখে কোরিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ অনেকে বিনিয়োগ করতে আসছে।
গতকাল সোনারগাঁও হোটেলে ‘পাওয়ার প্যাক ইকোনমিক জোন প্রাইভেট লিমিটেড’ এর বিনিয়োগ উন্নয়ন শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।
প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেন, প্রথমে যখন ১শ’ ইকোনমিক জোনের কথা বলা হয়েছিল তখন অনেকে বিশ্বাস করতে চায়নি। এখন কিন্তু মনে হচ্ছে ১শ’ যথেষ্ট নয়। আরও জোনের প্রয়োজন পড়বে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু কিন্তু বিসিক দিয়ে কাজটি শুরু করেছিলেন। সেইটারও একটি বৃহৎ ভার্সন। বিসিকে ছোট ছোট শিল্প থাকে এখানে বড় বড়গুলো থাকবে। সরকারের মধ্যম ও উন্নত রাষ্ট্রের লক্ষ্যমাত্রা এবং ডেল্টা প্ল্যান বাস্তবায়নে সহায়ক ভূমিকা রাখছে এসব শিল্প জোন।
এতদিন কী হতো? কোথাও রাস্তা নির্মাণ হলে তার পাশে গিয়ে আমরা জমি কিনতাম। এরপর ভরাট করে শিল্প স্থাপন করে গ্যাস বিদ্যুতের জন্য কান্নাকাটি শুরু করে দিতাম। ইকোনমিক জোনগুলো সেই যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দেবে বলে উল্লেখ করেন সালমান এফ রহমান। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ যখন ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় আসে তখন ইকোনমিক জোন নিয়ে আলোচনা হয়েছিল। তখন অনেক কাজ থাকায় এটাতে বেশি মনোযোগ দিতে পারেনি।
অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ বলেন, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) ১ কোটি কর্মসংস্থানের লক্ষ্য নিয়ে কাজ শুরু করেছে। বেজা মুহুর্তে অনেক কাজ করে দিচ্ছে। এটা এখন বাস্তবতা। তিনি বলেন, মোংলার ইকোনমিক জোনটি সুন্দরবনের কাছে। আমরা যেমন শিল্প চাই, তেমনি সুন্দরবন ও সুন্দরবনের জীব-বৈচিত্র্য রক্ষা করতে চাই। যারা এখানে বিনিয়োগ করতে চান তাদের অনুরোধ করব হলুদ কিংবা লাল ক্যাটাগরির কোনো শিল্প স্থাপনের প্রস্তাব না দিতে।
বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী বলেন, অন্যান্য দেশ অনেক আগে শুরু করেছে। আমরা বেসিক্যালি ২০১৫ সালে কাজ শুরু করেছি, লক্ষ্য ১ শ’ ইকোনমিক জোন। প্রথমে মিরসরাইতে ৫৫০ একর জমি দিয়ে যাত্রা শুরু করি। এখন সেখানে ৩০ হাজার একর জমি কনফার্ম হয়েছে। আনেক শিল্পও স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে। মহেশখালীতে ২৫ হাজার একর জমি নিশ্চিত করা হয়েছে। বেজা ইতোমধ্যে ৬০ হাজার একর জমির ব্যাংক তৈরি করেছে। ১ লাখ একর জমি কনফার্ম করতে চাই।
এই কাজ করতে গিয়ে প্রচুর অভিজ্ঞতা হয়েছে। অনেক বিদেশি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন হয়েছে। এখন শুধুই এগিয়ে চলার সময়। এক সময় এটাকে অনেকে বিশ্বাস করতে চায়নি। এখন এটা বাস্তবতা বলে মন্তব্য করেন বেজা চেয়ারম্যান।
পবন চৌধুরী বলেন, আমরা এতদিন ইকোনমিক জোন বলতে রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ এলাকার মধ্যে আটকে ছিলাম। ৩৯ বছরে মাত্র ৮টি ছোট ছোট ইপিজেড স্থাপন করেছি। যাতে মোট জমি রয়েছে মাত্র ২ হাজার ২শ’ ৯৮ একর। এখন অভ্যন্তরীণ ও রপ্তানিমুখী শিল্প এসব জোনে থাকবে। আমরা মিনিটের কম সময়ের মধ্যে ট্রেড লাইসেন্স করে দিচ্ছি। অনেক কাজ এখন সহজ হয়ে গেছে।
বেজার নির্বাহী সদস্য মো. আইউব বলেন, ২০১০ সালে বেজা গঠিত হয়েছে। আধুনিক সুবিধা সম্বলিত ১০০ ইকোনমিক জোন স্থাপনে কাজ করে যাচ্ছি। প্রধানত খাস ও এক ফসলি জমিতে এসব জোন স্থাপন করার কঠোর নির্দেশনা অনুসরণ করা হচ্ছে। পাওয়ার প্যাক দেশের প্রথম পিপিপির আওতায় স্থাপিত ইকোনমিক জোন। উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ আধুনিক সকল সুবিধা বিদ্যমান। আমি বিনিয়োগকারীদের অনুরোধ করব এখানে বিনিয়োগ করার জন্য।
বাংলাদেশ অর্থনৈতিক জোন কর্তৃপক্ষের (বেজা) সঙ্গে পিপিপির আওতায় সিকদার গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান পাওয়ার প্যাক ইকোনমিক জোন প্রাইভেট লিমিটেড অঞ্চলটির উন্নয়ন করছে। মোংলা বন্দরের অদূরে ২০৫ একর জমি নিয়ে গঠিত এই জোনে সড়ক যোগাযোগ, পানি সরবরাহ, বৈদ্যুতিক উপকেন্দ্র প্রশাসনিক ভবনের কাজ শেষ হয়েছে। ৪৪ শতাংশ প্লট বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। অবশিষ্ট প্লট পুরোপুরি প্রস্তুত রয়েছে। এখানে ২৫ হাজার লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন পাওয়ার প্যাক ইকোনমিক জোনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রন হক সিকদার।
অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন পাওয়ার প্যাক ইকোনমিক জোনের সিইও সৈয়দ কামরুল হাসান মোহন, পরিচালক (স্ট্র্যাটেজি ডেভেলপমেন্ট) নাইমুজ্জামান মুক্তা।