খবর

উন্নয়নের রোল মডেল হবে দোহার-নবাবগঞ্জ

15 January, 2019
Source: The Daily Amader Shomoy

দোহার-নবাবগঞ্জকে উন্নয়নের রোল মডেল করে সাজাতে চান আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার বেসরকারি খাত উন্নয়নবিষয়ক উপদেষ্টা ও ঢাকা-১ (দোহার-নবাবগঞ্জ) আসনে নবনির্বাচিত এমপি সালমান এফ রহমান।

তিনি বলেন, আমার অনেক দিনের স্বপ্ন এলাকার মানুষের সেবা করার। মহান সৃষ্টিকর্তা আমাকে সে পথ তৈরি করে দিয়েছেন। এ সুন্দর সুযোগ হাতছাড়া করতে চাই না। আমি আপনাদের সুখ-দুঃখের সাথী হতে চাই। আপনাদের ভালোবাসা নিয়ে আগামী দিনের পথ চলতে চাই। আপনারা যদি আমার পাশে থাকেন, তা হলে এ অবহেলিত দোহার-নবাবগঞ্জকে উন্নয়নের রোল মডেল করে গড়ে তুলব। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়লাভ করায় গতকাল সোমবার নিজের নির্বাচনী এলাকা নবাবগঞ্জে এক গণসংবর্ধনায় তিনি এসব কথা বলেন।

সালমান এফ রহমান বলেন, শেখ হাসিনা নির্বাচনের আগে যেসব প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তা তিনি যে কোনো মূল্যে রাখবেন। তিনি দলের সব এমপিকে নির্দেশ দিয়েছেন, নির্বাচনের সময় তারা যেসব প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তা অবশ্যই পালন করতে হবে। কারণ আওয়ামী লীগ জনগণের ভালোবাসা নিয়ে আবারও সরকার গঠন করেছে। উপজেলার পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ওই গণসংবর্ধনায় উপস্থিত জনতার উদ্দেশে তিনি বলেন, আজ আপনারা আমাকে যে সম্মান দিয়েছেন এর ঋণ আমি কোনো দিনও শোধ করতে পারব না। যারা আমাকে ভোট দিয়েছেন আমি তাদের এমপি। একইসঙ্গে যারা আমাকে ভোট দেননি, আমি তাদেরও এমপি। সবাইকে নিয়ে এলাকার কাজ করতে চাই।

বেক্সিমকো গ্রুপের এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার মাদক, দুর্নীতি ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টরালেন্স নীতি নিয়েছে। আমি সরকারের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে আমার এলাকায় এই কীটদের প্রতি যুদ্ধ ঘোষণা করছি। যারা মাদক ব্যবসা করে, অবৈধভাবে মাটি কাটে, সংখ্যালঘুদের জমি দখল করে, তারা যদি আমাদের পার্টির লোকও হয় আমি কোনো ছাড় দেব না।

তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে জনগণের মঙ্গলের জন্য। জনগণ চেয়েছে বলেই এবারও ইতিহাস গড়ে দলটি আবারও ক্ষমতায় এসেছে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশ ও দশের উন্নয়ন হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় মানে উন্নয়নের জোয়ার বইবে। উন্নয়নের এ প্রধানমন্ত্রী অনেক দেশের এখন আইকন। আওয়ামী লীগের সরকার না থাকলে বাংলাদেশের ক্ষমতা থাকত অন্যের হাতে। ফলে দেশের অবস্থা হতো করুণ। জনগণ এসব বুঝতে পেরেছে বলে আবারও আমাদের নির্বাচিত করেছে।

নারীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, শেখ হাসিনা নারীদের সম্মান দিয়েছেন। এখন সন্তানের জন্ম নিবন্ধনে বাবার নামের পাশাপাশি মায়ের নাম লেখা বাধ্যতামূলক করেছেন। এ কাজের মাধ্যমে নেত্রী নারীদের সম্মানিত করেছেন।

গণসংবর্ধনায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাসির উদ্দিন ঝিলুর সভাপতিত্বে আমন্ত্রিত অতিথির বক্তব্যে ইউনিক গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহা. নূর আলী শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, দেশরতœ আমাদের এমন একজন প্রার্থী দিয়েছিলেন, যিনি দেশ ও আন্তর্জাতিকভাবে খ্যাতিমান। যার মাধ্যমে আমাদের অবহেলিত এলাকার উন্নয়ন হবে। যা আমরা আগের কোনো এমপির কাছ থেকে পাইনি। আমার বিশ্বাস সালমান এফ রহমান জনগণের অজস্র ভালোবাসার প্রতিদান দেবেন।

তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগ স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি। এ শক্তিকে কোনো অপশক্তি রুখতে পারবে না। তাই এবার জনগণ ইতিহাস গড়ে স্বাধীনতার পক্ষে রায় দিয়েছে। কারণ জনগণ বিশ্বাস করে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশের উন্নয়ন হয়। এ সরকার উন্নয়নের সরকার। আওয়ামী লীগ জনগণের ভাগ্য উন্নয়নে কাজ করে।

সালমান এফ রহমানের কাছে দাবি রেখে নূর আলী বলেন, আমি আপনার নির্বাচনে সফরসঙ্গী হয়েছিলাম। আমি দেখেছি আমাদের এলাকা কত অবহেলিত। ঢাকার এত কাছে থেকেও আমরা মহানগরের সঙ্গে সংযুক্ত হতে পারিনি। এর মূল কারণ আমরা যোগ্য কোনো নেতা পাইনি। আজ আমরা এমন একজন নেতা পেয়েছি যার যোগ্যতা বলে শেষ করা যাবে না। তার সঙ্গে আমাদের দেশরতœ শেখ হাসিনার গভীর স¤পর্ক। তিনি চাইলে আমাদের এলাকাকে নিজের ঘরের মতো আপন মনে সাজাতে পারবেন। আর আমরা সাধারণ জনগণ তার কাছে এমন চমকপ্রদ উন্নয়ন আশা করছি।

দেশের প্রতিষ্ঠিত এই স্বনামধন্য ব্যবসায়ী বলেন, বিভিন্ন উঠান বৈঠকে আমরা আপনার উন্নয়নমুখী গুণাবলি জনগণের মধ্যে পৌঁছে দিয়েছি। দোহার-নবাবগঞ্জের জনগণ আমাদের কথা বিশ্বাস করেছে বলে বিপুল ভোটে নৌকাকে জয়ী করে জননেত্রীর হাত শক্তিশালী করেছে। তাই আমাদের দাবি, এ অবহেলিত এলাকাকে মডেল এলাকায় রূপান্তরিত করতে হবে। তা ছাড়া আমাদের এলাকায় তৃণমূলে নেতৃত্বের অনেক অভাব রয়েছে। আমি আশা করছি আপনার নেতৃত্বে তৃণমূল আবার জেগে উঠবে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে হাজার হাজার কোটি টাকার বাজেট পাস হয় কিন্তু যোগ্য নেতার অভাবে দোহার-নবাবগঞ্জের জনগণ এত বড় বাজেটের সুফল থেকে বঞ্চিত। আমরা এবার মনেপ্রাণে বিশ্বাস করি, সরকারের কোনো উন্নয়ন থেকে আমরা আর পিছিয়ে থাকব না।

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তোফাজ্জল হোসেন। নবাবগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জালাল উদ্দিনের সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন সাবেক গণপরিষদ সদস্য আবু মোহা. সুবেদ আলী টিপু, সাবেক এমপি খন্দকার হারুন অর রশিদ, ঢাকা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান, আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য আ. বাতেন মিয়া, সিনিয়র আওয়ামী লীগ নেতা মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, দোহার উপজেলা চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন, ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পনিরুজ্জামান তরুণ, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মনজুর হোসেন, কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল হোসেন, বেক্সিমকো গ্রুপের পরিচালক সায়ান এফ রহমান, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মরিয়ম মুস্তফা শিমু প্রমুখ।